২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৮, ৯ ফাল্গুন ১৪২৪, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
English Site Archive Login
 
Space For Ads
MENU
MENU
শিরোনাম
JOBAIDBD.COM

কূটনীতিকদের সঙ্গে বৈঠকের পর হতাশ বিএনপি!

বিশেষ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৩১ জানুয়ারী, ২০১৮ ০৯:১১ পি. এম. জেনিউজ বিডি ডট কম


মঙ্গলবার বিকেলে অত্যন্ত গোয়নীয়তার সঙ্গে কূটনীতিকদের সঙ্গে বৈঠক করেন বিএনপি। বৈঠকে মূলত: বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে চলমান দুটি দুর্নীতি মামলা নিয়ে কথা হয়। বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হয়, এই মামালা উদ্দেশ্যপূর্ণ, রাজনৈতিক হয়রানিমূলক। বেগম জিয়াকে দণ্ডিত করে নির্বাচন থেকে দূরে রাখাই এই মামলার উদ্দেশ্য।’ 

বিএনপির পক্ষ থেকে ব্যরিস্টার মওদুদ আহমেদ মামলার আদ্যোপান্ত বলা শুরু করলে, একজন কূটনীতিক তাঁকে থামিয়ে দিয়ে বলেন, ‘আর উই জুরি (আমরা কি জুরি?) আমাদের এসব বলার দরকার নেই।’ ব্যারিস্টার মওদুদ বলেন, ‘তোমাদের বলছি এজন্যই যে, এতে তোমরা বুঝবে কীভাবে হয়রানি করা হচ্ছে।’এ সময় এক দেশের কূটনীতিক জানতে চান, বেগম জিয়াকে কি গ্রেপ্তার করা হয়েছে? আসামিদের আত্মপক্ষ সমর্থনের পর্যাপ্ত সময় দেওয়া হয়নি কিংবা বিচারে কি যথেষ্ঠ তাড়াহুড়া করা হয়েছে? এসব প্রশ্নের জবাবে ব্যরিস্টার মওদুদ কোনো উত্তর দিতে পারেননি।

বিদেশী কূটনীতিকদের বলা হয়, বেগম জিয়াকে নির্বাচনের অযোগ্য করলে বিএনপি নির্বাচনে যাবে না।’ কূটনীতিকরা বলেন, ‘এটাই কি আপনাদের অবস্থান, তাহলে সহায়ক সরকারের দাবিটা বিএনপির আর নেই? জবাবে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘সহায়ক সরকারের দাবিও বহাল আছে।’ সহায়ক সরকারের রূপরেখা কী জানতে চান দুই দেশের কূটনীতিক। জবাবে বিএনপি নেতারা বলেন, রায়ের পরই আমরা সহায়ক সরকারের রূপরেখা দেব। কূটনীতিকরা জানতে চান রায়ের পর কেন?

ব্যরিস্টার মওদুদ বলেন,‘রায় নির্ধারণ করবে যে আমরা নির্বাচনে অংশ নিব কিনা?’ এসময় একজন কূটনীতিক বলেন, ‘আপনার কেনই ধরে নিচ্ছেন, রায় আপনাদের নেত্রীর বিরুদ্ধে যাবে?’ তিনি বলেন, ‘রায়ে তো আপনাদের নেতা নির্দোষও হতে পারেন। তখন আপনারা কী বলবেন?‘ জবাবে বিএনপির নেতা বলেন, সেটা তো হবে অবিশ্বাস্য ভালো সংবাদ, আমরা বুঝবো আদালতে সরকার হস্তক্ষেপ করেনি।’ এসময় একটি প্রভাবশালী দেশের কূটনীতির বলেন, ‘ধরা যাক দুটি মামলার একটিতে বেগম জিয়া খালাস পেলেন, অন্যটিতে দোষী হলেন, তখন আপনারা কী করবেন?’ এসময় বিএনপি নেতারা লা জবাব। পরস্পর মুখ চাওয়া চাওয়ি করলেন। 

কূটনীতিকরা বললেন, আমরা বাংলাদেশে অবাধ, নিরপেক্ষ এবং অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চাই। কিন্তু বাংলাদেশের আদালত কী রায় দেবে না দেবে, সেটা একান্তই তাঁদের নিজস্ব বিষয়। আমরা একটি স্বাধীন দেশের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করতে চাই না।’ 

ব্রেকিং নিউজ: